2 October 2022

NEWSCOPE

"Open to all, but Influenced by None"

এনডিএ জোটের উপরাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী জগদীপ ধনখড়

নিউজস্কোপ ডেস্ক: বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোটের পক্ষ থেকে উপরাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী হচ্ছেন পশ্চিমবঙ্গের বর্তমান রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। শনিবার সন্ধ্যায় সাংবাদিক বৈঠকে দলের সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডা উপরাষ্ট্রপতি পদে প্রার্থী হিসেবে জগদীপ ধনখড়ের নাম ঘোষনা করেন।

শনিবার সন্ধ্যায় দিল্লিতে বিজেপির সংসদীয় দলের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা, রাজনাথ সিং সহ দলের শীর্ষ নেতৃত্ব। এই বৈঠকেই জগদীপ ধনখড়কে উপরাষ্ট্রপতি পদে প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত করা হয় বলেও জানান নাড্ডা।

উপরাষ্ট্রপতি পদে প্রার্থী হিসেবে জগদীপ ধনখড়ের নাম ঘোষণা হওয়ার পরেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ট্যুইট করে তাকে শুভেচ্ছা জানান। এক ট্যুইট বার্তায় প্রধানমন্ত্রী লেখেন, কৃষক-পুত্র জগদীপ ধনখড় তাঁর নম্রতার জন্য পরিচিত, জগদীপ ধনকড়কে আমাদের উপরাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী করতে পেরে আনন্দিত, সংবিধান সম্পর্কে অসাধারণ জ্ঞানের অধিকারী জগদীপ ধনখড়”।

কৃষকপুত্র জগদীপ ধনখড় কর্মজীবনে আইনজীবী হিসেবে দীর্ঘদিন রাজস্থানের হাইকোর্ট এবং সুপ্রিম কোর্টে কাজ করেছেন। এরপর ১৯৮৯ সালে তিনি রাজস্থানের ঝুনুঝুনু কেন্দ্র থেকে জনতা দলের সাংসদ নির্বাচিত হন। এরপর ১৯৯৩ থেকে ১৯৯৮ সাল পর্যন্ত ধনখড় রাজস্থানের কিষানগড়ের বিধায়ক ছিলেন।

২০১৯ সালের ৩০ শে জুলাই পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল হয়ে বাংলায় আসেন জগদীপ ধনখড়। এবং পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল হিসেবেই তিনি সর্বাধিক পরিচিতি পান। গত ৩ বছরে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের সঙ্গে বিভিন্ন ইস্যুতে তার মতবিরোধ হয়। তার সময়ে নবান্ন রাজভবন সম্পর্ক এতটাই তিক্ত হয়ে ওঠে যে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে ধনখড় বিজেপি নেতার মত আচরণ করছেন বলেও একাধিকবার অভিযোগ করা হয়। এমনকি সংঘাত এতটাই চরমে পৌঁছয় যে স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাকে ট্যুইটারে ব্লক পর্যন্ত করে দেন। শুধু তাই নয় পশ্চিমবঙ্গ সরকারের পক্ষ থেকে রাজ্যপালকে সরানোর জন্য দিল্লিতে আবেদনও করা হয়।

তবে নিয়মিতভাবে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের বিরোধিতা করার পুরস্কার স্বরূপই উপরাষ্ট্রপতি পদে ধনখড়কে নির্বাচিত করা হয়েছে বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল। বিশেষজ্ঞদের মতে পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল পদ থেকে একটা সময় ধনখড়কে সরতেই হত। কিন্তু বাংলার রাজ্যপাল হিসেবে প্রতিনিয়ত বিভিন্ন ইস্যুতের রাজ্য সরকারকে বিড়ম্বনায় ফেলার পুরস্কার স্বরূপই এবার প্রমোশন দিয়ে তাকে বাংলা থেকে সরানো হচ্ছে বলেই মনে করছে বিশেষজ্ঞ মহল।

Also read: Gujarat Police implicates Teesta Setalvad in a “bigger controversy” behind  Gujarat’s 2002 riots https://newscope.in/?p=9552

>
%d bloggers like this: